জনতাই আমাদের শক্তি: ইমরান

আন্দোলনের তৃতীয় দিন। দূরে ইমরান এইচ সরকার। আমি হেঁটে হেঁটে সামনে যাচ্ছি। খোচা খোচা দাঁড়ি। চোখে ক্লান্তির হালকা ছাপ আছে। বিপ্লব করতে হলে ক্লান্তি ভুলে যেতে হয়। হয়ত সবকিছু ভুলেই দাঁড়িয়ে আছে। তার সঙ্গে আমার বন্ধু শামীম। একটু এগিয়ে গিয়ে নিজের নামটা বলে হাত বাড়ালাম। অমায়িকভাবেই  উত্তরটা আমাকে চমকে দেয়। বলে বসেন, আপনাকে চিনি। নাম শুনেছি। দেখা হয়নি। 

তাৎক্ষণিকভাবে কি বলবো বুঝিনি। কিছুক্ষণ আলাপ করেই একটা সাক্ষাৎকার নেওয়ার প্রস্তাব জানাই।

তবে মূলত ৪-৫ জনের মূল উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বসে শাহবাগ প্রজন্ম চত্বরের বিষয়ে দীর্ঘ আলোচনা করবো বলে ভেবেছিলাম। একদিন হুট করেই বাংলানিউজের হেড অব নিউজ মেনন ভাই বলল, ইমরান এইচ সরকারের সঙ্গে বসবেন। বেশ কয়েকদিন ধরেই ইমরানের সময় পাওয়ার জন্য তার সঙ্গে কথা বলি। কিন্তু সময় তিনি বের করতে পারেন না। সারাক্ষণ চারিদিকে মানুষ। ধরলাম সবাক পাখিকে। সবাক ভাই আমাকে একটা তারিখ দিয়ে বললেন- ওইদিন চলে আসবেন। আমি ব্যবস্থা করে দিব। সবাক পাখি এ আন্দোলনের আরেক নায়ক। সে নায়কের কথা আমি পরে বলবো। যাইহোক ইমরান এইচ সরকারের সঙ্গে ১৫ মিনিট কথা বলার কথা। কিন্তু কথায় কথায় পার হয়ে গিয়েছিল ৪৫ মিনিট। মেনন ভাই, আমি মিলে অনেক না জানা প্রশ্নের উত্তর বের করার চেষ্টা করেছি। অবশ্য প্রশ্নের পুরো প্ল্যানিংটা মেনন ভাইয়ের করা। 

jibon----------105

————————————————————–

তরুণরা আসছে আলোর পথে। তাদের চেতনা জাগ্রত হচ্ছে। তারা সবাই হয়ে উঠছে নতুন শক্তি, নতুন চেতনাবোধে উদ্বুদ্ধ। তাদের হাতেই গড়ে উঠবে নতুন বাংলাদেশ। এটাই স্বপ্ন ইমরানের। দ্রুতই বললেন- স্বপ্ন নয়, এটিই এখন বাস্তবতা। দেশের তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধকে ধারণ করে। তারা দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ। তারা ভবিষ্যতেও একটি প্রিয় সোনার বাংলাদেশকে দেখতে চায়। আর তার প্রমাণ শাহবাগ গণজাগরণ মঞ্চ এবং এই মঞ্চকে ঘিরে দেশজুড়ে গড়ে ওঠা হাজারো মঞ্চ।

ইমরান এইচ সরকার নামটি বাংলাদেশের প্রতিটি রাজনীতি সচেতন মানুষের জানা। দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে বিদেশেও ছড়িয়েছে এই নামের পরিচিতি। ইমরান একজন ব্লগারের নাম, একজন আন্দোলনকারীর নাম। একজন সংগঠকের নাম। একটি নেতৃত্বের নাম। রাজধানীর শাহবাগে ২০ দিন ধরে যে আন্দোলন চলছে তার প্রথম ডাক যাদের কাছ থেকে এসেছিলো ইমরান তাদের অন্যতম।

ইমরানের সঙ্গে বাংলানিউজের কথা হয় শনিবার রাতে। ভীষণ ব্যস্ততার মাঝেও একটু বেশি সময় ধরেই কথা বলেন ইমরান। আর সে আলোচনায় চলমান আন্দোলনের চেয়েও এই সফল সংগঠকের ভবিষ্যত ভাবনা ও পরিকল্পনাগুলো নিয়েই বেশি কথা হয়।

ইমরান বলেন, মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশ স্বাধীন হয়েছে। আমরা নিজেদের ভূখণ্ড পেয়েছি। এই দেশের প্রতিটি মানুষের মধ্যেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জাগ্রত থাকবে। দেশের প্রতিটি মানুষই হবে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের। এটাই আমার সবচেয়ে বড় প্রত্যাশা। এই আন্দোলন ও তাতে গণমানুষের অংশগ্রহণ, তাদের মুখে জয় বাংলা স্লোগান- এসব কিছুই প্রমান করেছে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি কোনো রাজনৈতিক দল নয়। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে এদেশের আপামর জনতা।

নতুন প্রজন্ম নিয়ে চূড়ান্তভাবেই আশাবাদী ইমরান। তিনি বলেন, একটি ছোট্ট ডাকে এমন কোটি মানুষের অংশগ্রহণ আমাকে অভিভূত করেছে। তবে শক্তি যুগিয়েছে তরুণ ও নতুন প্রজন্মের অংশগ্রহণ। আমরা বলছি, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কোনো দ্বিমত থাকবে না। চেতনার জায়গা এমন থাকতে হবে যেখানে কোনো বিভ্রান্তি থাকবে না। সে জায়গাটা সমাধান হয়ে গেলে আমার মনে হয় তরুণ প্রজন্ম যারা পরবর্তীতে আসবে বা এখন যারা আছে তাদের বিভ্রান্তি চলে যাবে।

যখন দলে দলে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা আসতে শুরু করে তখন যে শক্তি পাই সে শক্তিই আন্দোলনকে টিকিয়ে রেখেছে, বেগবান করেছে। এই আন্দোলন থেকে সেটাই বড় অর্জন। আর ৫ বছরের যে শিশুটি তার বুকে ‘জয় বাংলা‘ স্লোগানকে ধারণ করলো সেই একদিন বড় হয়ে এই স্লোগানকে টিকিয়ে রাখবে। সেভাবেই বাঙালির প্রাণের স্লোগান ধারাবাহিকভাবে টিকে থাকবে আরও হাজার বছর।

ইমরান বলেন, দেশের মানুষের ভূল ধারণা ছিলো এই নতুন প্রজন্ম নিয়ে। কিন্তু তারা দেখিয়ে দিয়েছে তারা দেশের প্রতিটি ধূলিকনাকে ভালোবাসে। তারা দেশ নিয়ে ভাবে। দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবে। তারা শেকড় নিয়ে ভাবে।

বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের সঙ্গে প্রবীণদের বেশ বড় একটা গ্যাপ ছিল উল্লেখ করে ইমরান বলেন, গত ১০ বা ১৫ বছরে বাংলাদেশে বেশ বড় একটা পরিবর্তন ঘটে গেছে। সামাজিক মূল্যবোধের জায়গাতেও পরিবর্তন ঘটে গেছে। আগে কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় পড়া মানুষের সংখ্যা খুব বেশি ছিল না। কিন্তু এখন বেসরকারি বা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা বাড়ছে। এমনকি দেশের বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রচুর স্কোপ তৈরি হচ্ছে। পড়ালেখার প্রতিও এ প্রজন্মের আগ্রহ তৈরি হয়েছে। বলতে গেলে, একটি মডেস্ট প্রজন্ম যারা লেখাপড়া করে, জানে। এবং জানার চেষ্টা করে। অর্থাৎ এরা পলিটিক্যালি অ্যাওয়ার। কিন্তু পলিটিক্যাল পরিবেশের জন্য বা বিভিন্ন সামাজিক কারণে রাজনীতি করে না। ফলে তারা একধরনের লাইফ লিড করে। এবং সেটা নিয়েই ব্যস্ত থাকে। যেমন, কেউ মুভি পাগল, কেউ ক্রিকেট পাগল, কেউ গান গাচ্ছে। আবার কেউ হয়ত বিভিন্ন সোশ্যাল একটিভিটিজ নিয়ে ব্যস্ত থাকে। এগুলো নিয়ে কিন্তু সবাই সবার জায়গা থেকে ব্যস্ত। কিন্তু সবাই রাজনীতি সচেতন। এই সচেতনতা দেখানোর কোনো জায়গা তাদের কাছে ছিল না। বয়োজ্যেষ্ঠরা এ কারণেই বিভ্রান্তিতে ছিলেন এবং ভাবতেন, এ প্রজন্মের কেউ হয়ত কিছু জানে না বা করে না, রাজনীতি নিয়ে এদের কোনো আগ্রহ নেই বা  ইতিহাস নিয়ে এদের কোনো আগ্রহ নেই বা মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এদের ভালোবাসার কোনো জায়গা নেই। এ বিভ্রান্তের কারণেই একটা গ্যাপ তৈরি হয়েছিল। এই আন্দোলন সেই গ্যাপটি পূরণ করেছে।

আন্দোলনের আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে এতে নিম্নবিত্তের খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণ, বলেন ইমরান। তিনি বলেন, আমি বলছি না সব শ্রেণি পেশার মানুষ এতে অংশ নেয়নি। সবাই অংশ হয়েছে এই আন্দোলনের। কিন্তু অতীতের সব আন্দোলনের মতো এবারেও আন্দোলনে বড় অংশগ্রহণ ছিলো খেটে খাওয়া মানুষের।

তবে এই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সবচেয়ে বড় যে প্রত্যাশার জায়গাটি তৈরি হয়েছে তা হচ্ছে তরুণ শিক্ষিত ছেলেমেয়েদের রাজনীতিতে অংশগ্রহণ। ইমরান বলেন, আমি চাই দেশে এখন এমন একটি জেনারেশন তৈরি হোক যারা রাজনীতি সচেতন হবে। রাজনীতেতে অংশগ্রহণ করবে। আমরা চাই রাজনীতি সচেতন যে মানুষগুলো পড়ালেখা করবে, রাজনীতি নিয়ে ভাববে, অ্যানালাইসিস করবে তারা রাজনীতিতে আসবে, দেশকে নেতৃত্ব দেবে।
বিরাজমান রাজনৈতিক কাঠামোয় সেটি সম্ভব কী? এমন প্রশ্নে ইমরান বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের দলটিকে রাজনীতি থেকে নিষিদ্ধ করতে হবে। চূড়ান্ত মৌলবাদী, মানবতাবিরোধী কাজে যারা নিজেদের সম্পৃক্ত করেছে তাদের রাজনীতি করার অধিকার নেই। আর এই দলটিকে বাদ দিলে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর যে কাঠামো তার মধ্যেই নতুন প্রজন্মকে সম্পৃক্ত করা সম্ভব।

রাজনৈতিক দলগুলো কী এই গণজাগরণের শক্তি উপলব্ধি করতে পেরেছে? এমন প্রশ্নে ইমরান এইচ সরকার বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো এই আন্দোলন থেকে শিক্ষা নেবে সেটাই প্রত্যাশা। শাহবাগে ও শাহবাগকে ঘিরে সারা দেশে তথা সারা বিশ্বে বাঙালি সমাজ যে আজ জেগে উঠেছে তা অবশ্যই একটি রাজনৈতিক কারণে। কিন্তু এ গণজাগরণকে পূঁজি করে রাজনীতি করার কোনো সুযোগ নেই। এবং সে সুযোগ আমরা কোনো দলকেই দেইনি। ক্ষমতাসীন বা বিরোধী দল কেউই সে সুযোগ পায়নি। তবে আমি প্রত্যাশা করবো- রাজনৈতিক দলগুলো এই আন্দোলনের শক্তি উপলব্ধি করে তাদের পরবর্তী রাজনৈতিক পদক্ষেপগুলো বিবেচনা করবে। ঢেলে সাজাবে তাদের রাজনৈতিক কর্ম-পরিকল্পনা।

আমি মনে করি- রাজনীতির ভেতরের পরিবেশ ধীরে ধীরে শুদ্ধ হতে বাধ্য। আর সেটা সম্ভব হলেই তরুণ প্রজন্ম রাজনীতিতে অংশ নিতে স্বস্তি পাবে, বলেন ইমরান।

তিনি বলেন, রাজনীতির বাইরে থেকে পরিশুদ্ধ রাজনীতি আমরা করতে পারবো না। জাগ্রত চেতনার তরুণরা যাতে রাজনীতিতে অংশ নিতে পারে সে জন্য রাজনীতির পরিশুদ্ধতা জরুরি। আবার তারা যোগ না দিলেও রাজনীতি পরিশুদ্ধ হবে না, এটা আমরা বুঝতে পারছি। কারণ আমি মনে করি, বাইরে থেকে যদি বলি- বস্তি থেকে গিয়ে নেতা হলো কেন? বা বলি, পড়ালেখা নেই তারা নেতা হচ্ছে কেন? এগুলো কিন্তু বাইরে বলে কোনো সমাধান হবে না। আমি মাঠ ছেড়ে দিয়ে এসে বাইরে থেকে যদি পরিশুদ্ধ রাজনীতি আশা করি, যদি মনে করি যে মেধাবীরা রাজনীতি করবে, কিন্তু আমি আমার গায়ে কাদা লাগাবো না- তাহলে কিন্তু কোনোদিনই এটা বদলাবে না। ওই পরিবেশ কোনোদিনই শুদ্ধ হবে না।

আপনি বললেন, বিরাজমান রাজনৈতিক কাঠামোয় তরুণরা রাজনীতি করতে পারবে। যদি তাই হয় বর্তমান রাজনীতিতে জামায়াত-শিবির বাদ দিলে প্রধান যে কয়টি দল থাকে তাদের মধ্যে কোন দলটিতে তরুণ প্রজন্মের অংশগ্রহণ চাইবেন আপনি? এই প্রশ্নে ইমরান বলেন, আমি মনে করি সত্যিকারের রাজনীতি সচেতন মানুষ তার জন্য যোগ্য দলটি অবশ্যই বেছে নিতে পারবে। যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে, নিজের দেশের ও জাতির শেকড়কে ধারণ করে সে কখনোই দল পছন্দ করতে ভুল করবে না, এটাই আমার বিশ্বাস।

তরুণ প্রজন্মেরই একটি অংশ বর্তমানে জামায়াত-শিবিরেও সম্পৃক্ত। মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীরাও এতে জড়িয়ে যাচ্ছে- এ বিষয়ে আপনার মত কি জানতে চাইলে ইমরান বলেন, এটিই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। যুদ্ধাপরাধী, সহিংসতায় বিশ্বাসী দলটি এদের টার্গেট করে রিক্রুট করছে। তাদের সুযোগ-সুবিধা দিয়ে মগজধোলাই করে দলে রাখছে। সহিংসতায় বাধ্য করছে। এই বিভ্রান্ত তরুণদের ধীরে ধীরে আবার মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়, প্রগতিশীলতায় ফিরিয়ে আনতে হবে। এটাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। তাদের সঙ্গে আমাদের সাইবার যুদ্ধ চলছে। এই যুদ্ধ প্রতিহত করার জন্য যতটা, তার চেয়ে বেশি তাদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনার যুদ্ধ। এরই মধ্যে অনেকেই ফিরতেও শুরু করেছে।

জামায়াত-শিবিরে যেসব তরুণ যোগ দিয়েছে তাদের এরই মধ্যে সামাজিকভাবে লজ্জায় পড়তে হচ্ছে। তারা সাধারণের সঙ্গে আর মিশতে পারছে না। এই সামাজিক লজ্জার সৃষ্টি হয়েছে গণজাগরণ মঞ্চের কারণেই। তারা এখন জানতে পেরেছে তারাই বিচ্ছিন্ন। দেশের আপামর জনসাধারণ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের, তারাই গুটিকয়েক মাত্র এর বিপক্ষে। ফলে সামাজিকভাবে তারা বিচ্ছিন্ন দ্বীপের বাসিন্দা হয়ে উঠছে। তরুণরা দ্রুতই এই সহিংস দলটি ছেড়ে আমাদের অহিংসার আন্দোলনের পথে এগিয়ে আসবে এটাই প্রত্যাশা।

আন্দোলনের গতি-প্রকৃতি বর্ণনা করতে গিয়ে ইমরান এইচ সরকার বলেন, আজকে আমরা যে আন্দোলনটি করছি এটি কিন্তু ভাষা আন্দোলন এবং মুক্তিযুদ্ধের অবদানেই হয়েছে। ভাষা আন্দোলন হয়েছে বলেই দ্রুততম সময়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে। তা না হলে হয়ত আরো ১০০ বছর লেগে যেত। ৭১-এর পর নানা প্রেক্ষাপট তৈরি হয়েছে। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে ’৯০এর আন্দোলন হয়েছে। এবং তখন আমরা গণতন্ত্রে ফিরে আসি। এবং আজকের যে আন্দোলন তা ওই সব আন্দোলন থেকে পাওয়া চেতনার বহিঃপ্রকাশ।  তবে অন্য সব আন্দোলন থেকে এটি আবার ভিন্ন প্রকৃতিরও।

এই আন্দোলনের ব্যাপ্তি এবং গণমানুষের সম্পৃক্ততার কারণে এর সাংগঠনিক ভিত্তি দেওয়াটা কঠিন কাজ। আমরা বলেছি আমাদের যে ছয়-দফা দাবি তা পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথে থাকবো। তবে এও বারবার বলে আসছি, এমনও হতে পারে যে সময়ের প্রেক্ষিতে আন্দোলনের প্যাটার্ন বদলাবে। যেমন, আপনারা দেখেছেন আমরা সমাবেশগুলো শুরু করে দিয়েছি। আমার মনে হয় সময় আরও যত যাবে বিশেষ করে বিভাগীয় সমাবেশগুলো যখন হবে তখন বিষয়গুলো আরও সুন্দর স্ট্রাকচারড হয়ে যাবে।

আর ছয়-দফা যে দাবি পূরণ মনে হয় না খুব কঠিন কিছু। এখন কিন্তু আন্দোলনটি সামাজিক আন্দোলনে রূপ নিচ্ছে। সমাজের প্রতিটি মানুষ যে যার জায়গা থেকে প্রতিবাদ করছে। এ আন্দোলনই যদি সারাদেশের গ্রামেগঞ্জে পরিপূর্ণতা লাভ করতে পারে তাহলে আমরা মনে করছি পরবর্তী কার্যক্রমগুলো অর্থাৎ আমাদের আরও যে সমস্যাগুলো তা সমাধান করা আরও সহজ হবে। কারণ তখন একটা প্রতিবাদি বা একটা সচেতন গোষ্ঠী তৈরি হয়ে যাবে প্রতিটি জায়গায়। যখনই এ সচেতন বা প্রতিবাদি গোষ্ঠীকে একসঙ্গে করা যাবে তখনই কিন্তু যে কোনো সমস্যায় তাদের ডাকলে একসঙ্গে পাওয়া যাবে।

আন্দোলনে রাজনৈতিক দলগুলোর সম্পৃক্ততা নিয়ে আপনার মত কি? এমন প্রশ্নে ইমরান বলেন,  ইতিমধ্যে আপনারা দেখেছেন বাংলাদেশের প্রগতিশীল যতগুলো ছাত্র সংগঠন সবাই কিন্তু একাত্ম হয়েছে। নিশ্চই তাদের যে মাদার সংগঠন তারাও ভাবছে। তাদের কাছে নিশ্চয় মেসেজ থাকবে যে ছাত্ররা একত্র হলো, যেখানে অনেক ক্ষেত্রেই মূল দলগুলোই ঐক্যবদ্ধ না। এমনকি এখানে যত ছাত্র সংগঠন এসেছে তাদের মধ্যেও আদর্শগত অনেক পার্থক্য আছে। কিন্তু যে দাবিটা নিয়ে আমরা এখানে এসেছি সে দাবি নিয়ে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবেই কাজ করছে। ঠিক এভাবেই জাতীয় সমস্যাগুলোতে কিভাবে আরও ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা যায় আমার মতে সব রাজনৈতিক দলেরই সেটা ভাবা উচিত।

রাজনৈতিক দলগুলো সম্পর্কে সাধারণ ধারণা আছে, ভোটের আগে তারা টাকা ছড়াবে এবং ভোটের রাজনীতিতে এগুবে। এমন রাজনৈতিক দলের ধারণাতেই ছিল না যে বাংলাদেশের জনগণ এভাবেও জেগে উঠতে পারে। তাদের দলীয় সমাবেশে লাখ লাখ লোক টাকার বিনিময়ে আসে। সে প্রেক্ষাপটে এমন গণজাগরণের পর তাদের মধ্যে কী ধরনের পরিবর্তন আনা উচিত?

আসলে রাজনৈতিক দলগুলোর গঠণতন্ত্র পড়লেই দেখবেন, তাদের তো গণমানুষ নিয়েই ভাবার কথা। মূলত সাধারণ মানুষ কি চায় কিংবা পরবর্তী প্রজন্ম কিভাবে দেশটাকে দেখতে চায় এ বিষয়টা তাদের মনে হয় বুঝতে হবে। তারা কি চায়, কি তাদের স্বপ্ন এসব বিষয় রাজনীতিবিদদের ভাবতে হবে। কারণ একটা বিষয় দেখেন- ভোটার সংখ্যা ৩৫ বছর বয়সসীমার মধ্যে প্রায় চার কোটি। অর্থাৎ অধিকাংশই তরুণ প্রজন্মের। যদি তারা ভোটের রাজনীতির কথাই ভাবে তাহলেও তো তরুণ প্রজন্মের সংখ্যাটাই বেশি। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ চার কোটি মানুষের মনের কথা বুঝতে হবে। তারা কেমন বাংলাদেশ চায়। তাহলে এই চার কোটি মানুষের ভাবনার মতো করে ম্যানিফেস্টো ঠিক করা উচিত, কর্মপন্থা ঠিক করা উচিত।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে নীতিনির্ধারনী পর্যায়ে এ বিষয়গুলো নিয়ে কি কোনো আলোচনা হয়েছে বলে আপনি মনে করেন? জানতে চাইলে ইমরান বলেন, একটা সময়ে আমি নিজেও একটি দলের ছাত্র সংগঠন করতাম। পরবর্তীতে আমি যখন চিকিৎসক হয়ে যাই তারপর থেকে আমি সরাসরি কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ত নই। তবে একটি বিষয়ে হচ্ছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অর্থাৎ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য আমরা খুব সচেতনভাবেই দেখেছি বা শুনেছি। এমনকি জাতীয় নেতাদের কে কি বলছেন সে বিষয়গুলো অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গেই আমরা খেয়াল করেছি। আমার মনে হয়েছে- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর যে বক্তব্য ছিল এ আন্দোলন নিয়ে তা অত্যন্ত ইতিবাচক। এ আন্দোলনকে  উনি সাধুবাদ জানিয়েছেন। উনি বারবারই কথা বলেছেন এ বিষয়ে। আপনারা – শুরু থেকেই কিন্তু আমরা সরকারের কাছে কোনো দাবিদাওয়া নিয়ে যাইনি। আমরা মহান জাতীয় সংসদের মাননীয় স্পিকারের কাছে দাবি পেশ করেছি। এমনকি শুরু থেকেই রাজনীতিকদের আমরা বলেছি, তারা যেন এখানে না আসেন। তারপরও অনেকে এসেছেন। সাধারণ মানুষের সঙ্গে দাঁড়িয়ে স্লোগান দিয়েছেন। সরাসরি পার্টির মুখপাত্র হিসেবে তাদের কথা বলার কোনো সুযোগ ছিল না। সেটা আমরা রাখিনি। সেজন্য অফিশিয়াল কোনো অবস্থান আমরা জানতে পারিনি। তো বিচ্ছিন্নভাবে রাজনৈতিক যে বক্তব্য তারা দিয়েছেন তাদের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যই যথেষ্ট ইতিবাচক ছিল। মানে আশার কথা হবে যদি তিনি আমাদের চেতনাকে ধারণ করেই ওই কথাগুলো বলে থাকেন।

বিরোধী দলের কেউ কেউ এ আন্দোলনকে গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছেন। এ বিষয়ে কি আপনাদের কাছে কোনো তথ্য আছে? বাংলানিউজের এ প্রশ্নে ইমরান বলেন, আমার যেটা মনে হয় তাদের কৌতুহল ছিল। মনে হয় তাদের বিষয়টা বুঝতেও সময় লাগছে। কিংবা তাদের যারা বুঝিয়েছে তারা হয়ত ভুলভাবে বুঝিয়েছে। এজন্য বিভিন্ন সময়ে তারা যে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন তা কিন্তু খুবই বিভ্রান্তিকর ছিল। যার ফলে একেকজনের সঙ্গে আরেকজনের বক্তব্যের মিল ছিল না।

বিরোধীদল বলছে- এখানে আরও ইস্যু সংযুক্ত হওয়া উচিত ছিল। শাহবাগের রাস্তা বন্ধ করে আন্দোলন কেন? এমন প্রশ্নও তুলেছে। এগুলো কি তারা রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে বলছে? এমন প্রশ্নে ইমরান বলেন, আরও অনেক বিষয় যোগ করা যেত কথাটি আমার মনে হয় একদমই রাজনৈতিক বক্তব্য। আমরা কিন্তু চেতনার ইস্যু নিয়ে কথা বলছি। এখানে একটা দেশ স্বাধীন হয়েছে তার চেতনার জায়গার ইস্যু নিয়ে কথা বলছি। এখানে অন্য কোনো দাবি যোগ করলাম কি করলাম না তার উপর সমর্থন করা কেন নির্ভর করবে? আর বিষয় তো অনেকই আছে। সেখানে অনেক রাজনৈতিক মতবিরোধও থাকতে পারে। কিন্তু আমাদের প্রথম যে বিষয়টি এসেছে সেটি হচ্ছে আমরা কোনো রাজনৈতিক ইস্যু এখানে আনবো কি না? কিন্তু আমরা শুরুতেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যেহেতু কোনো রাজনৈতিক দলকেই কোনোভাবেই ডাকছি না। বিশেষ করে জাতীয় রাজনীতিকেও আমরা স্বাগত জানাইনি। যখনই রাজনৈতিক এজেন্ডা এখানে যোগ করবো তখনই একটা মতবিরোধ তৈরি হবে। আর তাই শুরু থেকেই আমাদের অবস্থান ছিল এখানে আমরা কোনো রাজনৈতিক এজেন্ডা আনবো না।

আর শাহবাগের রাস্তা বন্ধ করার বিষয়ে বলতে চাই, অনেকেই এ আন্দোলনকে দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ বলতে চাচ্ছেন। আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা এখানে এসেছেন তাদের বক্তব্যেই তারা বলেছেন এটাও একটা যুদ্ধ। আমরা বলতে চাই, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাস্তবায়নের যে আন্দোলন সে আন্দোলনে একটু সেক্রিফাইস করতে হয়। যে কোনো আন্দোলন আপনি যেখানেই করেন কিছু আপনাকে সেক্রিফাইস করতেই হবে। এখানেও সাধারণ মানুষসহ নগরবাসীরা মূলচত্বর নিয়ে একটু ভোগান্তি হলেও মেনে নিচ্ছেন। আর সবচেয়ে বড় কথা- আমরা কিন্তু ছেড়ে দেওয়ার অনেক চেষ্টা করেছি। কিন্তু সাধারণ মানুষ না ছাড়লে আমরা কি করতে পারি।

শুরু থেকে যে কোনো কিছুরই কিন্তু একটা এক্সিট স্ট্র্যাটেজি থাকা উচিত।  আপনি যদি বের হতে না পারেন তবে সেটা আত্মঘাতী হয়ে পড়বে। এই আন্দোলনের এক্সিট স্ট্র্যাটেজিটি কি হবে? এ প্রশ্নে ইমরান বলেন, যুদ্ধাপরাধীর সর্বোচ্চ বিচারের দাবিতেই আমরা রাজপথে এসেছি। তাদের বের হওয়ার যে ফাঁকফোকরগুলো বন্ধ করতেই আন্দোলন করছি। তবে সে ফাঁকফোকর বন্ধ হয়ে গেছে। তাদের টপ যুদ্ধাপরাধীদের যদি শাস্তি কার্যকর হয়ে যায় তখন ধীরে ধীরে আন্দোলনটি সাংস্কৃতিক আন্দোলনের দিকে মোড় নেবে।

আমাদের দেশে সাংস্কৃতিক আন্দোলন কিন্তু সবসময়ই শক্তিশালী ছিল। ধীরে ধীরে দেশজুড়ে বাঙালির যে চেতনা সে জায়গায় সাংস্কৃতিক আন্দোলন নিয়ে যেতে পারি।

সাংস্কৃতিক আন্দোলনের মাধ্যমেই এ চেতনাকে মজবুত করা সম্ভব হবে। যে চেতনায় আমরা আন্দোলন করে যাচ্ছি সে চেতনাটি সাংস্কৃতিক আন্দোলনের মাধ্যমে বিস্তার লাভ করতে পারবে।

মূলত এক্সিট বিষয়ে বলতে গেলে, এখন আমরা এমনভাবে আন্দোলনে সম্পৃক্ত সেখান থেকে কোনো কিছু বলা কঠিন। তবে ধাপ বদলাবে। এখন তো দ্বিতীয় ধাপ চলছে। ধীরে ধীরে প্ল্যাটফর্ম তৈরি হচ্ছে। সারা দেশে গণজাগরণ মঞ্চ তৈরি হচ্ছে। ধীরে ধীরে আমাদের নেটওয়ার্ক বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমরা খুব শিগগিরই অরগানাইজড হয়ে যাবো।

আমাদের যারা আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত, আমাদের মূল দাবিগুলোর যদি বেশিরভাগ শিগগিরই আদায় হয়, তখন এক্সিট আরও সহজ হবে। এক্সিট নয়, মূলত পরের ধাপে চলে যাওয়া। তবে এতোগুলো মানুষকে একসঙ্গে একটা সিদ্ধান্তের ভেতর নিয়ে আসা দূরহ ব্যাপার।

আমরা কিন্তু অহিংস আন্দোলন করছি। জনতাই আমাদের শক্তি। সেই শক্তিই এই আন্দোলনকে টিকিয়ে রাখবে।